অতনু রায়

কলকাতা, জুন ১৩: অভিনয়ে তিনি অ-সীমা। তাঁর উপস্থিতি দর্শককে দিয়ে এসেছে এক অদ্ভুত বিশ্বাস। সবধরনের চরিত্র সমান বিশ্বাসযোগ্যতার সঙ্গে ফুটিয়ে তুলতে তাঁর জুড়ি মেলা ভার। দীর্ঘ ১৩ বছর পরে আবার বাংলা ছবিতে অভিনয় করতে কলকাতায় এলেন তিনি। অরোরা ফিল্মস প্রযোজিত এবং শর্মিষ্ঠা-রাজদীপ পরিচালিত ‘মন পতঙ্গ’ ছবিতে একটি বিশেষ চরিত্রে দেখা যাবে জাতীয় পুরস্কার জয়ী অভিনেত্রী সীমা বিশ্বাস‘কে। শ্যুটিং-এর ফাঁকে একান্তে আড্ডা দিলেন অভিনেত্রী।

প্রশ্ন: ‘মন পতঙ্গ’ ছবিতে একদমই অন্যরকম একটা চরিত্রে অভিনয় করছেন। আপনার চরিত্রটা কি কাজ করে এই ছবিতে?

সীমা: আমার চরিত্রটা এই ছবির সঙ্গে খুব ভালভাবে কানেক্টেড। এই ছবির নাম ‘মন পতঙ্গ’ কারণ, সবারই মনে একটা পতঙ্গ থাকে যে উড়ে বেড়ায়। আমারও আছে। এবার সে উড়ে কোথায় যায় সেটাই দেখাবে এই ছবি। পুরো গল্পটা আমি বলব না কারণ, এইটুকু সাসপেন্স থাকা দরকার। এটুকুই শুধু বলছি যে, আমি ফুটপাতের একজন মানুষ যে একটা দোকান করে চা, পাউরুটি, অমলেট বিক্রি করে। পিঁয়াজ, লঙ্কা কেটে অমলেট বানায়, খাওয়ায়। এখানে একটা মজার ব্যাপার হয়েছে, অনেক সাধারণ মানুষ এটা সত্যি ভেবে আমার দোকানে চা-সিগারেটের খোঁজে এসেছিলেন।

প্রশ্ন: অসম থেকে আপনি ‘ন্যাশনাল স্কুল অব্ ড্রামা’-তে পড়তে গেলেন। সারাদিন ক্লাস করার পরে বন্ধুরা মিলে কখনও ফুটপাতের দোকানে খাবার খেয়েছেন?

সীমা: ন্যাশনাল স্কুল অব্ ড্রামা-তে (NSD) আমার প্রথম তিন মাসের কথা বলছি, আমার স্কলারশিপ ছিল ২০০ টাকা। আমি তখন নিজেকে বুঝিয়েছিলাম যে, আমি এই টাকার মধ্যেই সবটা ম্যানেজ করে নেব। আমরা চার বোন আর এক ভাই ছিলাম। আমি মা-বাবার কাছে ‘বার্ডন’ হতে চাই নি। শুধু ট্রেনে আসা যাওয়ার টিকিট বাদে বাকি সবটা আমি ম্যানেজ করে নেব ঠিক করেছিলাম। এই প্রবণতা কিন্তু আমার প্রথম নয়। আজও ফাইভ স্টার হোটেলের ঘরটুকুই আমার ভাল লাগে শুধু পরিষ্কার বাথরুম আর বিছানা থাকে বলে। ফাইভ স্টার লাইফটা আমি এনজয় করি না। এনএসডি ফার্স্ট ইয়ারে যখন আমার মা আমাকে নিয়ে গেলেন, পাঁচটার সময়ে তিনসুকিয়া মেলে আমরা মান্ডি হাউস পৌঁছেছি। ওখানে তখনও গেট খোলেনি। ফুটপাতে একটা চায়ের দোকান ছিল, সেখানে আমি আর মা চা খেয়েছিলাম। চা খেতে খেতে মা আমাকে বলেছিল, “তোমার প্রতি আমাদের বিশ্বাস আছে। বিশ্বাসটা রাখা তোমার কাজ। আমরা চৌকিদারিও করবনা, তোমাকে কিছু জিজ্ঞাসাও করবনা”।

এরপর এনএসডি-তে যখন পড়েছি, সেরকম ভাবে ফুটপাতের খাবার ছিল না। আমাদের কম্পাউন্ডের মধ্যে বেঙ্গলী মার্কেট ছিল। খুব পশ্ বা রিচ নয় কিন্তু ফুটপাত এলাকাও ছিল না, যেহেতু এটা মান্ডি হাউস এলাকা। কিন্তু রাত্রি বারোটা, একটা বা দুটোর সময় প্রজেক্ট করে যখন প্রচণ্ড টায়ার্ড থাকতাম আমাদের টিচারই আমাদেরকে বলতেন যে, “চল্ আজকে তোদের অমলেট-পরোটা খাইয়ে আনি”। তখন আমরা টাইমস অফ ইন্ডিয়া অফিসের পিছনে একটা যায়গায় যেতাম। তবে অসমে ফুটপাতে খাওয়ার প্রচুর স্মৃতি আছে আমার। রাস্তায় পাতায় করে যে ঘুগনিটা দেয়, জল জল একটা ভাব থাকে, ওই অনুভূতিটা কখনোই কোনও ফাইভ স্টার হোটেলে বসে পাওয়া যাবে না। ওর মধ্যে একটা মাটির গন্ধ থাকে, সেটা আমার খুব ভাল লাগে।

প্রশ্ন: ফুটপাতের জীবন আপনাকে আকর্ষণ করে?

সীমা: একটা কথা মনে পড়ল, বলি। এনএসডি-তে আমার বেশিরভাগ ক্লাসমেট খুব বড়লোক ছিল। একজনের দাদা এসেছিল বলে আমাকে তাজে নিয়ে গিয়েছিল। তখন আমি প্রথম দেখেছি যে ও ক্রেডিট কার্ড দিয়ে পেমেন্ট করেছে। আমি তখনই ঠিক করেছিলাম, যতদিন না আমার নিজের এই সামর্থ্য হবে আমি এই ধরনের ইনভিটেশনে যাব না। কারণ, এটা আমার একটা কমপ্লেক্স তৈরী করছিল। মনে হচ্ছিল, কারোর দয়ায় আমি ফাইভ স্টার হোটেলে খেতে ঢুকছি।

ফুটপাতের জীবনটা আবার একদম আলাদা। শ্যুটিং করতে করতে আমি ফুটপাতে এক দম্পতিকে দেখছিলাম। লোকটি স্টোভ জ্বালাচ্ছে আর তার স্ত্রী পিঁয়াজ কাটছে। দেখলাম ওইটুকু জায়গার মধ্যে তাঁরা সবকিছু করছে। আমরা শ্যুটিং করছিলাম, আমাদেরকে তাঁরা বিন্দুমাত্র ডিস্টার্ব করে নি। তারপরে দেখলাম দুটো বাচ্চা, তারা পড়াশোনা করছে। তাদের মধ্যে কিন্তু সেই ব্যাথাটা আমি ধরতে পারছিনা! এই যে ফুটপাতে বসে ওরা রান্না করে, এত সুন্দর গন্ধ বেরোয় আমার খালি মনে হয় যে আমি ওদের পাশে গিয়ে বসে ওদের তাওয়া থেকে একটা রুটি তুলে নিই। এঁদের জীবনটা আমাকে খুব টানে। মন থেকে বলছি। আমার অ্যাসিস্ট্যান্ট যে ছিল তাকে বলছিলাম, দেখো এটাই কিন্তু রিয়্যালিটি।

প্রশ্ন: আপনি একজন অভিনয় শিখে আসা অভিনেত্রী। একজন শিখে আসা আর না শিখে আসা অভিনেতার সঙ্গে অভিনয়ের কতটা আলাদা অনুভূতি হয়?

সীমা: শিখে আসা হোক বা না শিখে আসা, অভিনয়ের ক্ষেত্রে সেটা আমার কাছে অতটা গুরুত্ব পায় না। আমি যদি এনএসডি’র কথা ধরি, সারা দেশ থেকে কুড়ি জনকে নেওয়া হয়। এ ছাড়াও যে মানুষগুলো অভিনয় করতে চাইছেন তাঁদের তো সেটা ক্রাইম নয়! তাঁরা সেখানে সুযোগ পেলেন না বা আর্থিক কারণ বা তাঁদের ইচ্ছে নেই যেকোন কিছু হতে পারে। আমি মনে করি যে অভিনেতা হতে চাইলেই যে ট্রেনিং নিতে হবে সেটা কিন্তু সবসময় খুব একটা দরকারি নয়। এত কিংবদন্তি অভিনেতা রয়েছেন, যদি বাংলাতেও ধরি, বেশিরভাগই তো নন-ট্রেইন্ড অ্যাক্টর। আমার ক্ষেত্রে যদি আমার সহ-অভিনেতা একটা অ্যাটিটিউড নিয়ে কাজ করেন বা মনে হয় যে তিনি হৃদয় দিয়ে কাজটা করছেন না, তখন আমার একটুখানি আনকম্ফর্টেবল্ লাগে কিন্তু আমি কিছু বলি না। কারণ, ছবি আসলে একদমই পরিচালকের মাধ্যম। আমার খুব ইচ্ছে হয় যে, যাঁরা নতুন রয়েছেন তাঁদেরকে আমার অ্যাক্টিং প্রসেস বা মেথডের টিপস দিয়ে যেতে। আমি কিন্তু একদমই বলছি না যে, আমি খুব ভাল অভিনেত্রী। আমি শুধু তাদেরকে শেখাতে চাই যে, কষ্ট করো, খাটো, আন্তরিক আর সৎ থাকো। চরিত্র যেমনই হোক, অভিনয় করতে হবে হৃদয় থেকে। আমি অনেক সময়েই আমার সহ-অভিনেতাদের অনেক কিছু বলি আবার অনেককে বলি না। কারণ, আমি বুঝতে পারি যে কাকে বললে শুনবে। যে শুনবে না, আমি তাকে বলি না।

প্রশ্ন: আপনার কাছে ‘অভিনয়’ কি?

সীমা: একজন অভিনেত্রী হিসেবে আমি বুঝি, অ্যাকশন এবং তার রিয়্যাকশন্…এটাই অভিনয়। আপনি যতটা রেগে গিয়ে আর যে টোনে আমার সঙ্গে কথা বলবেন, আমি সেই টোনের ভিত্তিতেই রিয়্যাক্ট করব। আমাকে শেখর (কাপুর) বলত, একজন যেরকম টোনে তোমার সঙ্গে কথা বলছে তুমি যখন একদম সেই টোনেই তাঁকে উত্তরটা দিচ্ছ, সেটাই কিন্তু রিয়্যালিটি। ভালভাবে রিহার্সাল করেও যদি ফিডব্যাক স্ট্রং না হয় তাহলে সেটাও কিন্তু রিয়্যালিটি নয়। আমি কোনও সিচ্যুয়েশনে অভিযোগ করিনা, আমি মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করি। আমি তো শাহরুখ খান, অমিতাভ বচ্চন বা মাধুরী দীক্ষিতের মত কোনও বড় স্টার নয়, যে শর্ত দেবে কাকে কাস্ট করবে আর কাকে করবে না! আমি একজন কমপ্লিট অভিনেত্রী এবং একজন হার্ডকোর থিয়েটার অভিনেত্রী। একজন মানুষ যদি মানুষ হিসেবে আমাকে ডিস্টার্ব করে তখন আমি একটু আনকম্ফোর্টেবল ফিল করি কিন্তু চেষ্টা করি যাতে আমার অভিনয় বা কাজে সেই প্রভাবটা না পড়ে।

প্রশ্ন: প্রথম ছবি ‘ব্যান্ডিট কুইন’, পরের ছবি ‘খামোশি দ্য মিউজিক্যাল’। দুটো চরিত্র একদম আলাদা হলেও ছবি হিসেবে দুটোই অন্য ধারার। এই ধরণের ছবি দিয়ে ইন্ডাস্ট্রিতে পা রাখলে আদ্যন্ত কমার্শিয়াল ছবিতে কাজ পেতে অনেকেরই অসুবিধা হয়। আপনার ক্ষেত্রে এই সমস্যা হয়নি?

সীমা: আপনারা দেখবেন, ‘ব্যান্ডিট কুইন’ আর ‘খামোশি দ্য মিউজিক্যাল’ প্রায় একই সঙ্গে রিলিজ হয়েছিল। ‘ব্যান্ডিট কুইন’-এর যখন এডিটিং চলছিল তখন সঞ্জয় লীলা ভনশালী চার ঘণ্টার ‘রাশ্ – কাট্’ দেখেছিলেন। এরপর আমাকে খুঁজছিলেন। আমি তখন ‘কান ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল’, ‘লন্ডন ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল’ ঘুরে বম্বেতে। তখন দিল্লিতে ‘ন্যাশনাল স্কুল অব্ ড্রামা’ রেপার্টরীতে কাজ করি। বম্বেতে হল্ট ছিল এক রাত। আমার যে বন্ধুরা ছিল তাদের কাছে একরাত থাকতে পারব কিনা জানতে ফোন করলাম। তারা তখন বলল, তুই চলে আয় তোকে খুঁজতে দিল্লি গেছে রামগোপাল ভার্মা আর সঞ্জয় লীলা ভনশালী। পরের দিন সকালে আমাকে একটা নম্বরে ফোন করতে বলল। ফোন করলাম, সঞ্জয় এল। বন্ধুর বাড়ির সিঁড়িতে বসে আমাকে পুরো গল্পটা শোনালো। আমার স্ক্রিপ্ট চাই তাই আমাকে স্ক্রিপ্ট দিল। আমি শেখর কাপুরের সঙ্গে আলোচনা করলাম এবং শেখর আমাকে ছবিটা করতে বারণ করল।

প্রশ্ন: তা সত্ত্বেও করলেন কেন?

সীমা: শেখর আমাকে বলেছিল, “অনেকগুলো বড় ছবি আসছে, তুমি এই জায়গাটাকে নষ্ট কোরোনা। তুমি এই ছবিটা করলে সবাই তোমাকে এরপরে মায়ের চরিত্রে কাস্টিং করবে”। তারপরে লক্ষ্য করবেন, ‘হাজার চুরাশির মা’ সহ অনেক ছবিতে আমি সত্যিই মায়ের চরিত্র করেছি। তখন আমি মায়ের চরিত্রেই নতুন কিছু একটা মাত্রা দেওয়ার চেষ্টা করছিলাম। তখন সুধীর মিশ্র, রামগোপাল ভার্মা আমাকে বারবার বলেছিলেন যে এটা কোরোনা। ইন্ডাস্ট্রিতে আমার কোনো গডফাদার বা গডমাদার কেউ নেই। আমি চুপচাপ একা বসে ভাবলাম আর নিজেকে জিজ্ঞাসা করলাম। মনে হল, আমার ‘ব্যান্ডিট কুইন’ এখনও রিলিজ হয়নি ভারতে তাতেই এত বিতর্ক! আমি রাস্তায় বেরোলেই মানুষ আমাকে চিনে ফেলে, আমি এয়ারপোর্টে গেলে মানুষ আমাকে চেনে কিন্তু তাঁরা আমার কাজ দেখেনি। এই ধরণের বিখ্যাত আমি হতে চাই না, আমি প্রমাণ করতে চাই যে আমি একজন কমপ্লিট অভিনেত্রী এবং আমি এটা করবই। তাই আমি নিজেই সিদ্ধান্ত নিই যে আমি ছবিটা করব। আমি জানি শেখরের খুব খারাপ লেগেছিল কিন্তু আমি করেছিলাম। তার জন্য আমি পরবর্তীকালে ভুগেছি। আমাকে সত্যিই শুধুমাত্র মায়ের চরিত্রের জন্য বাছা হয়েছে পরপর। কিন্তু সেই সময়ে আমার নিজেকে প্রমাণ করার তাগিদটাও ছিল যে আমি ‘কন্ট্রোভার্সি আইটেম’ নয়, আমি একজন অভিনেত্রী।

প্রশ্ন: সে তো দু নম্বর ছবিতেই হয়ে গেল

সীমা: আমাদের এখানে ঐশ্বর্য রাই বা মাধুরী দীক্ষিতের মত সুন্দরী না হলে তাঁকে কল্পনা করে কোনও গল্প লেখা হয়না। আমাদের মত অভিনেত্রীদের কাছে এটা খুব কষ্টের একটা জায়গা। অনেক বিদেশী ছবিতে কিন্তু আমরা এরকম চরিত্র দেখে থাকি। আমাদের মত লুক-এর মানুষের জন্য কেউ গল্প ভাবেনা, এটা খুব কষ্টের। আমি কিন্তু সার্ভাইভালের জন্য এই কাজগুলো করিনি। আমি তো ভেবেছিলাম ‘ব্যান্ডিট কুইন’ আমার প্রথম এবং শেষ ছবি। রামগোপাল ভার্মা ‘কোম্পানি’র সময় বলেছিল, “সীমা, তুমি আমার উপরে বিশ্বাস রাখ”। উনি আমাকে অনেক ইম্প্রোভাইজ করতে দিয়েছেন, আমিও আমার মত করে ছোট ছোট অনেক মুহূর্ত অ্যাড করেছি।

প্রশ্ন: কাজের জন্য অপেক্ষা তারমানে সেরকমভাবে করতে হয়নি কখনোই?

সীমা: ‘ব্যান্ডিট কুইন’-এর পরে দু’বছর আমি চুপচাপ ঘরে বসে ছিলাম। কারণ, তখন আমার কাজ করতে ইচ্ছে করত না। এমন ধরণের চরিত্র আসত! আমির খানের মা, অমিতাভ বচ্চনের মা, অনিল কাপুরের মা অথবা কেউ এরকম বলেছেন যে ‘ব্যান্ডিট কুইন’ কমপ্লিট বানাতে চান, এইসব। আর্থিকভাবে সেইসময়ে আমি প্রচন্ড কষ্টে কাটিয়েছি। এখনও আমি আমার ডিগনিটিকে হার্ট করতে চাই না কিন্তু আমাকে তখন আর্থিকভাবে খুবই খারাপ দিন কাটাতে হয়েছে। আমি সেটা কাউকেই বলতাম না, এমনকি আমার বাবা-মা’কেও আমি বলিনি। আমি ঘরের গ্রীল বন্ধ করে নিজেকে আটকে রাখতাম। এমনকি আমি জাতীয় পুরস্কার পাওয়ার পরে যখন মানুষ ফুল দিতে এসেছেন তখন দেখেছেন যে আমার ঘরের বাইরের দিক থেকে তালা দেওয়া, তাঁরা ভেবেছেন সীমা নেই তাই বাইরে ফুল রেখে গেছেন। আসলে আমি না কখনোই ‘পাবলিসিটি সিকার’ ছিলাম না। আমি একজন আদ্যন্ত অন্তর্মুখী মানুষ। আমি সবসময়ই আমার তরফ থেকে চেষ্টা করেছি, সিলেক্টিভ কাজ করেছি, যেখানে যতটুকু সম্ভব আলাদা কিছু করার চেষ্টা করেছি। সব মা তো একরকম হতে পারেন না, তাই মায়ের চরিত্রেও আমি যতটুকু আলাদা কিছু দিতে পারি সেই চেষ্টাই করেছি।

প্রশ্ন: ওটিটির ভবিষ্যৎ নিয়ে কি ভাবছেন? সম্প্রতি ওটিটিতে বেশ কয়েকটা ভাল কাজ নিজেও তো করলেন।

সীমা: ওটিটিতে যেকটা কাজ করেছি, তা নিয়ে আমি গর্বিত। কাজগুলো খুব ইন্টারেস্টিং। কিন্তু একই সঙ্গে আমার একটু ভয়ও হয়। এখন আমি অনেকক্ষেত্রে ওটিটিতে খুব নীচু মানের ও নিম্ন রুচির কাজ দেখছি। আমার নতুন প্রজন্মটাকে নিয়ে খুব ভয় হয়। মুম্বইতে আমার বাড়িতে অনেক ‘আন্ডার প্রিভিলেজড্’ বাচ্চা থাকে। তারা আসে অনেক আশা নিয়ে, স্বপ্ন নিয়ে। তাদের কাছে অডিশনের জন্য অনেক ফোন আসে আর যে বিষয়গুলো আসে সেগুলো খুবই খারাপ। সেগুলোকে কোনোভাবেই আপনি ব্লু-ফিল্মের থেকে আলাদা করে দেখতে পারবেন না। খুবই নিম্ন রুচির। আর যদি ভালর দিকে আসে তাহলে ভায়োলেন্স, সাসপেন্স থ্রিলার, এইসব। কিন্তু সেটাই তো যথেষ্ট নয়। তাও বলব, এর মধ্যেও অনেক ভাল কাজ হচ্ছে। আমার নিজের কাছেও বেশ কয়েকটা খুব ভাল গল্প এসেছে। এই যেরকম ‘মন পতঙ্গ’ করছি, এরকমই আরো অনেক ইন্টারেস্টিং ভাল কাজ আমার কাছে এসেছে। নতুন প্রজন্ম ব্যস্ততা ভালবাসে, ব্যস্ত থাকতে চায় আর সার্ভাইভ করতে চায়। কিন্তু দেখতে হবে যে, টেলিভিশনের মতো ট্র্যাজেডি যেন না হয়। ভয় হলেও আশা রাখছি যে, আরও অনেক ভাল মানের কাজ এখানে হবে। আমি খুবই গর্বিত যে আমি ‘ফ্যামিলি ম্যান ২’ এর মত সিরিজের অংশ হতে পেরেছি। এগুলোর পেছনে অনেক হার্ড ওয়ার্ক আছে। খুব ভালভাবে লেখা সিরিজ এবং খুব ভালভাবে তাঁরা কাজটা করে। এরকম হলে খুব ভালই হয়। তখন কাজের সংখ্যাটা অনেক বাড়বে। ছবি কিন্তু সকলে বানাতে পারে না। এর জন্য অনেক টাকা পয়সার দরকার। কর্পোরেট সাপোর্ট কিন্তু সবাই পায়না। তবে সেখানে ওটিটিতে ভাল কাজ করলে সারা পৃথিবীর কাছে পৌঁছানোর একটা সুযোগ থেকে যায়।

Loading

Spread the love